শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ০৩:১১ অপরাহ্ন

আপডেট
*** অনলাইন নিউজ পোর্টাল / অনলাইন টেলিভিশন সহ যে কোন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরির  জন্য আজই যোগাযোগ করুন  - ০১৬৪৬৯৯০৮৫০।।  ভিজিট করুন - www.popularhostbd.com।।

‘পাকিস্তানে হামলা বেসামরিকদের উদ্দেশে নয়, জঙ্গি দমনে’

‘পাকিস্তানে হামলা বেসামরিকদের উদ্দেশে নয়, জঙ্গি দমনে’

পাকিস্তান সীমান্তে ভারতীয় বিমানবাহিনী যে হামলা চালিয়েছে, সেটা দেশের বেসামরিকদের উদ্দেশে নয় বলে জানিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্র সচিব বিজয় কেশব গোখলে।

তিনি বলেছেন, বিমানবাহিনীর এ অভিযান জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদকে (জেইএম) উদ্দেশ্য করে চালানো হয়েছে। দমনমূলক এ অভিযানে বহু সংখ্যক জঙ্গি নিহত হয়েছে। সাধারণ মানুষের কোনো ক্ষতি হয়নি।

মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৩টার দিকে পাকিস্তানের বেলাকোট শহরে জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে ভারতীয় বিমানবাহিনীর হামলার পর দিল্লিতে সংবাদ সম্মেলন ডাকেন পররাষ্ট্র সচিব। তখন তিনি হামলাটির উদ্দেশ্য বলেন।

এসময় গোখলে বলেন, পাকিস্তানে মাসুদ আজহারের নেতৃত্বে জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ প্রায় দুই দশক ধরে কার্যক্রম চালাচ্ছে। ভাওয়ালপুরে তাদের সদর দফতর।

তিনি আরও বলেন, অভিযানে জইশ-ই-মহম্মদের বহু সদস্যসহ সিনিয়র কমান্ডার ও প্রশিক্ষকরা নিহত হয়েছেন। বেলাকোটের এ জঙ্গিদের নেতৃত্বে ছিলেন মাওলানা ইউসুফ আজহার। তিনি ‘উস্তাদ ঘোরী’ নামেও পরিচিত। নিহত জঙ্গিরা দেশের বিভিন্নস্থানে হামলা চালাতেন।

২০০৪ সালে ভারতের বিরুদ্ধে হামলা চালাতে কোনো জঙ্গিগোষ্ঠীকে পাকিস্তান মদদ দেবে না প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল বলে জানান গোখলে। তাদের এই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা উচিত ছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অন্যদিকে, এ হামলায় কোনো হতাহত কিংবা ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে দাবি করছে পাকিস্তান। তবে পাকিস্তান সেনাবাহিনী বলছে, ভারতের বিমানবাহিনী আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে।

বিমানবাহিনীর বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, অভিযানে ১২টি অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান মিরেজ-২০০০ অংশ নেয়। এ সময় বেলাকোটের জঙ্গিগোষ্ঠীর ক্যাম্পে প্রায় এক হাজার কেজি ওজনের বোমা নিক্ষেপ করে সেটি পুরোপুরি ধ্বংস করে দেওয়া হয়।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, এক হাজার কেজির লেজার গাইডেড বোমাটি নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) পেরিয়ে জঙ্গিগোষ্ঠীটির প্রশিক্ষণ ক্যাম্পটি গুঁড়িয়ে দেয়।

এদিকে, অভিযানের জন্য বিমানবাহিনীকে ‘স্যালুট’ জানিয়েছেন ভারতীয় কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী।

তবে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে পাকিস্তান। দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর টুইটারে এ ঘটনার কিছু ছবি পোস্ট করেছেন। তিনি বলেছেন, ভারতীয় বিমানবাহিনী আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে। পরে পাকিস্তান বিমানবাহিনী তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিলে তারা পিছু হটে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় হামলায় দেশটির বিশেষায়িত নিরাপত্তা বাহিনী সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪৪ সদস্য নিহত হন। এরপরই হামলার দায় স্বীকার করে পাকিস্তানি জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ। এ নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে চলছে উত্তেজনা। ঘটনার জন্য পাকিস্তানকে দোষছে ভারত। আর পাকিস্তান এ অভিযোগ উড়িয়ে দিচ্ছে।

এরপর ‘চিরশত্রু’ দু’দেশের সরকার প্রধানের মধ্যে শুরু হয় বাগযুদ্ধ। দিল্লি-ইসলামাবাদের উত্তেজনার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র নিন্দা জানিয়ে জঙ্গিদের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানায়। পাশাপাশি এ উত্তেজনা প্রশমনে জাতিসংঘ মধ্যস্থতা করতেও আগ্রহ দেখায়।

এরইমধ্যে পাকিস্তান সীমান্তে জইশ-ই-মহম্মদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প গুঁড়িয়ে দেওয়ার কথা জানালো ভারতীয় বিমানবাহিনী।


Search News




© Daily matrichaya. All rights reserved.
Design BY PopularHostBD